কেন্দ্রীয় ব্যাংক কাকে বলে?

কেন্দ্রীয় ব্যাংক কাকে বলে? আমরা যদি বাংলাদেশের ব্যাংকিং ব্যবস্থা নিয়ে কিছু জানতে চাই তাহলে শুরুতে আসবে ব্যাংক কি? বা কেন্দ্রীয় ব্যাংক কি? এসব।আমরা এই পোস্টে ব্যাংক সম্পর্কে নানা প্রশ্ন ও উত্তরের বিস্তারিত আলোকপাত করার চেষ্টা করেছি।  

ব্যাংক কাকে বলে? (Definition of Bank)

ব্যাংক বলতে আমরা বুঝি এমন একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা Financial Institution যেটি কোন এক পক্ষের কাছ থেকে আমানত হিসাবে অর্থ জমা রাখে এবং অন্য পক্ষকে আমানতি অর্থ থেকে ঋণ দেয়।ব্যাংকের মাধ্যমে মানুষ তার অতিরিক্ত জমানো টাকা আমানত হিসেবে গচ্ছিত রাখে যাকে Money Deposit  বলে।

ব্যাংকের উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ (Origin and Evolution of Banks)

১। সভ্যতার বিকাশ ও ব্যাংক ব্যবস্থা

ক) সিন্ধু সভ্যতা (The Indus Civilization)
খ) ব্যাবিলনিয় সভ্যতা (The Babilonian Civilization)
গ) বৈদিক যুগ (The Vedic Civilization)
ঘ) রোমান সভ্যতা (The Roman Civilization)
ঙ) চৈনিক সভ্যতা (The Chinese Civilization)

২. যুগের ধারাবাহিকতায় ব্যাংকের ইতিহাস

ক. প্রাচীন যুগ (খ্রিস্টপূর্ব ৫০০০ থেকে খ্রিস্টপূর্ব ৪০০০ অব্দ)
খ. মধ্য যুগ (খ্রিস্টপূর্ব ৪০০ থেকে ১৬০০ খ্রিস্টাব্দ)
গ. আধুনিক যুগ (১৬০০ খ্রিস্টাব্দ থেকে বর্তমান কাল পর্যন্ত)
 ৩. ভারতীয় উপমহাদেশে ব্যাংক ব্যবস্থার ক্রমবিকাশ
ক. প্রাচীনকাল
খ. মোঘল আমল
গ. ব্রিটিশ আমল
ঘ. পাকিস্তান আমল
ঙ. বাংলাদেশ আমল

আরও পড়ুনঃ তালিকাভুক্ত ব্যাংক কি ?

কেন্দ্রীয় ব্যাংক কাকে বলে?(Definition of Central Bank)

কেন্দ্রীয় ব্যাংক হচ্ছে একটি দেশের সর্বোচ্চ আর্থিক প্রতিষ্ঠান। সহজে বলা যায়, একটি দেশের মুদ্রা, অর্থ সরবরাহর ও সুদের হার ঠিক বা নিয়ন্ত্রণ করে থাকে যে ব্যাংক,তাকে সেই দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক( Central Bank)বলা হয়।

একটি দেশের অর্থনৈতিক প্রাণকেন্দ্র হলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক এর সংজ্ঞায়, A Dictionary of Economics তে বলা হয়েছে,

“A bank which controls a country’s money supply and monetary policy. It acts as a banker to other banks and a lender of last resort.”

অর্থাৎ এমন একটি ব্যাংক যা একটি দেশের অর্থ সরবরাহ এবং আর্থিক নীতি নিয়ন্ত্রণ করে। এটি অন্য ব্যাংকের ব্যাংকার হিসাবে কাজ করে এবং শেষ অবলম্বনকারীদের ঋণদাতা হিসাবে কাজ করে।

বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক রিজার্ভ ব্যাংক বা আর্থিক কর্তৃপক্ষ নামে পরিচিত।

সকল দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক গুলো সেই দেশের মুদ্রা ছাপে। যেকোনো কেন্দ্রীয় ব্যাংক কর্তৃক ইস্যুকৃত মুদ্রায় হচ্ছে দেশের বিহিত মুদ্রা।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাজ হল মুদ্রা ছাপানো। বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নাম বাংলাদেশ ব্যাংক(bd bank)।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাজ

১. মুদ্রা ছাপানো

২. অর্থ সরবরাহ করা 

৩. সুদের হার নিয়ন্ত্রণ করা 

৪. সরকারের প্রতিনিধি ও আর্থিক পরামর্শ দেওয়া ইত্যাদি। 

বাণিজ্যিক ব্যাংক কাকে বলে?(Definition of Commercial  Bank)

পুরোপুরি সরকারের মালিকানা ও পরিচালনার জন্য যে সকল ব্যাংক প্রতিষ্ঠিত হয় তাকে রাষ্ট্রায়ত্ত বানিজ্যিক ব্যাংক বলা হয়। মানে যে সকল ব্যাংকের মালিক রাষ্ট্র এবং যৌথ মালিকানা,ব্যক্তি মালিকানা,বেসরকারি উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত,পরিচালিত ও নিয়ন্ত্রিত ব্যাংকে বেসরকারি বানিজ্যিক ব্যাংক বলে।এই ব্যাংকগুলি প্রধানত ব্যক্তি বা বেসরকারি সংস্থা মালিকানাধীন।বাংলাদেশ মোট ৪৩ টি বেসরকারি বানিজ্যিক ব্যাংক রয়েছে। এই ব্যাংকগুলো দুই ভাগে বিভক্ত প্রচলিত ব্যাংক ও ইসলামিক ব্যাংক

বিশেষায়িত ব্যাংক কাকে বলে?(Specialized Bank)

যে ব্যাংকগুলি গ্রাহকদের প্রয়োজন ও অর্থনীতির বিশেষ বিশেষ কোন দিক নিয়ে পরিচালনা করা হয় তাকে বিশেষয়িত ব্যাংক (Specialized Bank) বলা হয়। বাংলাদেশে মোট  ৩টি বিশেষায়িত ব্যাংক রয়েছে যেগুলোর মালিকানা পুরোটাই বাংলাদেশ সরকারের হাতে। ব্যাংক ৩ টিকে ভিন্ন ভিন্ন বিশেষ উদ্দেশ্য পূরণের জন্য তৈরি করা হয়েছে। ব্যাংক তিনটি হচ্ছে –

১. বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক

২. রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক

৩. প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক কাকে বলে?

পুরোপুরি সরকারের মালিকানা ও পরিচালনার জন্য যে সকল ব্যাংক প্রতিষ্ঠিত হয় তাকে রাষ্ট্রায়ত্ত বানিজ্যিক ব্যাংক বলা হয়। মানে যে সকল ব্যাংকের মালিক রাষ্ট্র।  

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলো কি কি?বাংলাদেশে মোট ছয়টি রাষ্ট্রায়ত্ত বানিজ্যিক ব্যাংক রয়েছে। 

১. অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড

২. জনতা ব্যাংক লিমিটেড

৩. সোনালী ব্যাংক লিমিটেড

৪. রূপালী ব্যাংক লিমিটেড

৫. বেসিক ব্যাংক লিমিটেড

৬. বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক

আরও পড়ুনঃ Sonali bank branch list(সোনালী ব্যাংক শাখা)

গ্রামীন ব্যাংক কাকে বলে?(Grameen Bank)

তালিকাভুক্ত ব্যাংক এর পাশাপাশি বাংলাদেশ ৫টা অ-তালিকাভুক্ত ব্যাংক রয়েছে

গ্রামীণ ব্যাংক তার একটি।গ্রামীন ব্যাংক(Grameen Bank) বাংলাদেশের একটি ক্ষুদ্রঋণ প্রদানকারী সংস্থা।গ্রামীন ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ডঃ মুহাম্মদ ইউনুস । ১৯৭৬ সালে গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ১৯৮৩ সালে এটি একটি বৈধ এবং স্বতন্ত্র ব্যাংক হিসেবে যাত্রা শুরু করে। গ্রামীণ ব্যাংকের ঋণ পরিশোধের হার ৯৮%। 

সিডিউল ব্যাংক কাকে বলে?/তফসিলি ব্যাংক কাকে বলে?(Scheduled Bank)

তালিকাভুক্ত ব্যাংক (Scheduled Bank) কি? সাধারণত আমরা বুঝি যে সকল ব্যাংক কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নিদিষ্ট তালিকায় অন্তর্ভুক্ত তাদেরকে তালিকাভুক্ত ব্যাংক বা তফসিলি ব্যাংক বা শিডিউল ব্যাংক (Scheduled Bank) বলে। যে কোন দেশের সব ব্যাংক কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তালিকাভুক্ত থাকে না। তালিকার বাইরে ও অনেক ব্যাংক থাকতে পারে। প্রধানত কেন্দ্রীয় ব্যাংক বিশেষ শর্ত সাপেক্ষে ব্যাংকের নাম তালিকাভুক্ত করে থাকে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক তার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হওয়ার জন্য বিভিন্ন রকমের ব্যাংক যেমন-বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংক, শিল্প ব্যাংক, বিনিয়োগ ব্যাংক, সমবায় ব্যাংক ইত্যাদির উপর অনেক রকমের নিয়ম ব শর্ত জুড়ে দেয়। তখন যে সকল ব্যাংক কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এসব শর্ত পূরণ করতে পারে তারা কেন্দ্রীয় ব্যাংকে তালিকায় স্থান পায়।এর ফলে ব্যাংকগুলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক হতে বিশেষ কিছু সুযোগ সুবিধা পায়। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এ তালিকায় অন্যান্য ব্যাংকের নাম অন্তর্ভুক্ত হওয়ার প্রক্রিয়াকে তালিকাভুক্তকরণ বলে।

আরও পড়ুনঃ Sonali bank Routing Number(সোনালী ব্যাংক রাউটিং নম্বর)

একক ব্যাংক কাকে বলে?(Definition of Unit Bank)

সাধারণত যে সব ব্যাংকের কোন শাখা নেই তাকে একক ব্যাংক বা  Unit Bank. বলে।সহজ ভাষায়, যে ব্যাংক একটি অফিসের মাধ্যমে কোন নিদিষ্ট এলাকায় ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে তবে তাকে একক ব্যাংক বলে।

একে Micro Banking System ও বলা হয়ে থাকে। যুক্তরাষ্টে প্রথম এই ধরনের ব্যাংকিং ব্যবস্হা গড়ে উঠে।

শাখা ব্যাংক কাকে বলে?(Definition of Branch Bank)

একটি প্রধান শাখার অধীনে বিভিন্ন শাখার মাধ্যমে যে ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা হয় তাকে শাখা ব্যাংক( Branch Bank)বলে।যেমন -সোনালী ব্যাংক,জনতা ব্যাংক,ইসলামী ব্যাংক ইত্যাদি। পৃথিবীতে শাখা ব্যাংক শুরু হয় ইংল্যান্ড থেকে। বাংলাদেশের ব্যাংকিং কার্যক্রম ও শাখা ব্যাংকিং।একক ব্যাংকের কিছু অসুবিধা দূর করতে এই শাখা ব্যাংকিং এর প্রচলন হয়।

চেইন ব্যাংক কাকে বলে?(Chain Bank)

একই ধরনের কতগুলো ব্যাংক যখন ব্যক্তিগত ও সমষ্টিগত মালিকানায় নিজস্ব সত্তা বজায় রেখে কোন কৌশলের মাধ্যমে পরিচালিত হয় তাকে চেইন ব্যাংক (Chain Bank)বলে।

যুক্তরাষ্টে ১৯৩০সালে মহা মন্দার সময় চেইন ব্যাংকিং ব্যবস্থা চালু হয়।

মার্চেন্ট ব্যাংক কাকে বলে?(Merchant Bank)

বিনিময় ব্যাংকিং ও বিনিয়োগ ব্যাংকিং মিলে যে ব্যাংকিং ব্যবস্থা গড়ে ওঠা তাকেই মার্চেন্ট ব্যাংক(Merchant Bank) বলে। বৈদেশিক বাণিজ্যে এসব ব্যাংক গ্রাহকদের পক্ষে প্রত্যয়পত্র ইস্যু, রপ্তানিকারক কর্তৃক উত্থাপিত বিলে স্বীকৃতি দান ও বিলের অর্থ পরিশোধ করে থাকে। মার্চেন্ট ব্যাংক দীর্ঘমেয়াদে ঋণ দেয়, যৌথ উদ্যোগে অর্থ বিনিয়োগ করে এবং অবলেখকের দায়িত্ব ও পালন করে থাকে।

মিশ্র ব্যাংক কাকে বলে?(Mixed Bank)

যে ধরনের ব্যাংক বিশেষায়িত ও বাণিজ্যিক উভয় ব্যাংকের কার্যক্রম সম্পাদন করে থাকে তাকে মিশ্র ব্যাংক (Mixed Bank)বলে। 

অর্থাৎ মিশ্র ব্যাংক একদিকে যেমন বিশেষায়িত কাজ করে থাকে সাথে সাথে তেমনি বাণিজ্যিক কার্যাবলীও করে থাকে। এ ধরনের ব্যাংকগুলো শিল্প-কারখানা ও অন্যান্য উৎপাদন কাজে নিয়োজিত প্রতিষ্ঠানগুলোকে দীর্ঘ ও মধ্যমেয়াদী এবং ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে স্বল্পমেয়াদি ঋণ প্রদান করে থাকে।

জার্মান, জাপান,সুইজারল্যান্ডে শুরুতে মিশ্র ব্যাংক প্রচলিত হলে ও এখন অধিকাংশ উন্নত দেশে  মিশ্র ব্যাংক বিস্তার লাভ করেছে। বাংলাদেশে কৃষি ব্যাংক,বিডিবিএল এ রকম ব্যাংক।

কর্মসংস্থান ব্যাংক কাকে বলে?(Employment Bank)

কর্মসংস্থান ব্যাংক সরকারের মালিকানাধীন একটি ব্যাংক।বাংলাদেশ ৫টা অ-তালিকাভুক্ত ব্যাংক রয়েছে।কর্মসংস্থান ব্যাংক তার একটি। দেশের বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানের উদ্দেশ্য ১৯৯৮ সনের ৭নং আইন বলে কর্মসংস্থান ব্যাংক প্রতিষ্ঠা হয়।বর্তমানে সারাদেশে প্রায় ৩৩টি কার্যালয় এবং ২৫৫ টি শাখার মাধ্যমে তার যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে। 

কৃষি ব্যাংক কাকে বলে?(Agriculture Bank)

কৃষিঋণ কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে দেশের সর্ববৃহৎ জাতীয় বিশেষায়িত ব্যংকিং প্রতিষ্ঠান। ১৯৭৩ সালে কৃষি উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক আদেশবলে (রাষ্ট্রপতির আদেশ নং ২৭, ১৯৭৩) একটি বিশেষায়িত সরকারি ব্যাংক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়।যা কৃষি ব্যাংক (Agriculture Bank)নামে পরিচিত। 

বাংলাদেশে মোট  ৩টি বিশেষায়িত ব্যাংক রয়েছে যেগুলোর মালিকানা পুরোটাই বাংলাদেশ সরকারের হাতে,বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক তার একটি। 

হোল্ডিং ব্যাংক কাকে বলে?(Holding Bank)

যে ব্যাংকের অধীনে অন্যান্য ব্যাংকগুলো একএিত বা সংঘবদ্ধ হয় তাকে হোল্ডিং ব্যাংক বলে।

সরকারি ব্যাংক কাকে বলে?(Government Bank)

পুরোপুরি সরকারের মালিকানা ও পরিচালনার জন্য যে সকল ব্যাংক প্রতিষ্ঠিত হয় তাকে রাষ্ট্রায়ত্ত বানিজ্যিক ব্যাংক বা সরকারি ব্যাংক(Government Bank) বলা হয়। মানে যে সকল ব্যাংকের মালিক রাষ্ট্র।  

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলো কি কি?বাংলাদেশে মোট ছয়টি রাষ্ট্রায়ত্ত বানিজ্যিক ব্যাংক রয়েছে। 

১. অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড-  প্রতিষ্ঠিত ১৯৭২ সালে

২. জনতা ব্যাংক লিমিটেড-  প্রতিষ্ঠিত ১৯৭২ সালে

৩. সোনালী ব্যাংক লিমিটেড-  প্রতিষ্ঠিত ১৯৭২ সালে

৪. রূপালী ব্যাংক লিমিটেড-  প্রতিষ্ঠিত ১৯৭২ সালে

৫. বেসিক ব্যাংক লিমিটেড- প্রতিষ্ঠিত ১৯৮৮ সালে

৬. বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক- প্রতিষ্ঠিত ২০০৯ সালে

কার্যভিত্তিক ব্যাংক কাকে বলে?(Functional Bank)

ব্যাংকের কার্যাবলীর ভিত্তিতে ব্যাংকের শ্রেণীবিভাগকরা হয়-

ক. কেন্দ্রীয় ব্যাংক( Central Bank) 

খ. বানিজ্যিক ব্যাংক( Commercial Bank) 

গ. কৃষি ব্যাংক(Agriculture Bank)

ঘ. শিল্প ব্যাংক(Industrial Bank)

ঙ. বিনিময় ব্যাংক(Exchange Bank)

চ. বিনিয়োগ ব্যাংক(Investment Bank)

ছ. সঞ্চয়ী ব্যাংক(Saving Bank)

জ. বন্ধকী ব্যাংক(Mortgage Bank)

ঝ. পরিবহন ব্যাংক(Transport Bank)

ঞ. ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প ব্যাংক(Small and Cottage Bank)

ট. আমদানি -রপ্তানি ব্যাংক(Import-Export Bank)

বিনিময় ব্যাংক কাকে বলে?( Exchange Bank)

বৈদেশিক মুদ্রা বিনিময় ও বৈদেশিক লেনদেন নিষ্পত্তির জন্য যে ব্যাংক গঠিত হয় তাকে বিনিময় ব্যাংক( Exchange Bank)বলে।

সমবায় ব্যাংক কাকে বলে?(Cooperative Bank)

সমবায়ের আইন ও নীতি অনুযায়ী যে ব্যাংক গঠিত এবং পরিচালিত হয় তাকে সমবায় ব্যাংক(Cooperative Bank)বলে।

সমবায় ব্যাংক,সমবায় আইন দ্বারা গঠিত। উদাহরণ -রাজশাহী কো-অপারেটিভ ব্যাংক।

স্বায়ত্তশাসিত ব্যাংক কাকে বলে?(Autonomous Bank) 

যে সকল ব্যাংক সংবিধানের বিশেষ অধ্যাদেশ ও সরকারের বিশেষ আইন বলে গঠিত হয় এবং স্বাধীন ভাবে স্বনিয়ন্ত্রিণ ব্যবস্থায় পরিচালিত হয় তাকে স্বায়ত্তশাসিত ব্যাংক(Autonomous Bank) বলে।

ইসলামী ব্যাংক কাকে বলে?(Islami Bank)

ইসলামিক ব্যাংক ইসলামী শরীয়তের সকল স্তরের নীতিমালা মেনে চলে।তারা তাদের সকল কর্মকাণ্ডে সুদ বর্জন করে চলে ইসলামিক ব্যাংক মূল দুটি নীতির উপর প্রতিষ্ঠিত- সুদ লেনদেন নিষিদ্ধ ও লাভ এবং লোকসানের ভাগ নেওয়া। বলা যায় ইসলামিক ব্যাংক এমন একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান যা পবিত্র ইসলাম ধর্মের অর্থনৈতিক ও আর্থিক ব্যাংকিং নীতি বাস্তবায়ন করে। বাংলাদেশে ইসলামী শরীয়াহ ভিত্তিক মোট দশটি ইসলামিক ব্যাংক রয়েছে। ইসলামী শরীয়াহ ভিত্তিক ব্যক্তিমালিকানাধীন ১০ টি ব্যাংক হলো-

১. আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড

২. এক্সিম ব্যাংক লিমিটেড

৩. ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামীব্যাংক লিমিটেড

৪. গ্লোবাল ইসলামিক ব্যাংক লিমিটেড

৫. আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক লিমিটেড

৬. ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড

৭. শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড

৮. সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড

৯. স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড

১০. ইউনিয়ন ব্যাংক লিমিটেড

আন্তর্জাতিক ব্যাংক কাকে বলে?(International Bank)

দেশের জাতীয় সীমানা পেরিয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনার উদ্দেশ্য যে ব্যাংকের শাখা আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ছড়িয়ে পড়ে তাকে আন্তর্জাতিক ব্যাংক(International Bank)বলে।যেমন – IMF(International Monetary Fund),WB(World Bank) 

বিনিয়োগ ব্যাংক কাকে বলে?(Exchange Bank) 

যে ব্যাংক নতুন শিল্প-ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে মধ্য ও দীর্ঘ মেয়াদি ঋণ প্রদান সহ বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে থাকে তাকে বিনিয়োগ ব্যাংক(Exchange Bank) বলে।

আঞ্চলিক ব্যাংক কাকে বলে?(Regional Bank) 

সাধারণত একটি নির্দিষ্ট অঞ্চল বিশেষ এর কার্যক্রম পরিচালনার জন্য যে ব্যাংক গঠিত হয় তাকে আঞ্চলিক ব্যাংক(Regional Bank) বলে।

শিল্প ব্যাংক কাকে বলে?(Industrial Bank)

দেশের শিল্প খাত উন্নয়নের জন্য যে ব্যাংক পরিচালিত হয় তাকে শিল্প ব্যাংক(Industrial Bank)বলে।

সাধারণত ভূমি কেনা,কারখানা নির্মাণ ও যন্ত্রপাতি সংগ্রহ ইত্যাদির জন্য শিল্প ব্যাংক ঋণ প্রদান করে থাকে। 

এছাড়া ও আরো অনেক রকমের ব্যাংক আছে। পরবর্তীতে সেই সব ব্যাংক নিয়ে আলোচনা করব।

Leave a Comment