ভিটামিন কয় প্রকার ও কি কি? 

ভিটামিন কয় প্রকার ও কি কি? 

ভিটামিন কয় প্রকার ও কি কি? জীবদেহে প্রয়োজনীয় প্রায় সব রকম খাদ্য গ্রহণ করা সত্ত্বেও এক বিশেষ খাদ্য উপাদানের অভাবে জীবদেহের বৃদ্ধি ও পুষ্টি হয় না, 

বিজ্ঞানী হপকিনস ওই প্রকার খাদ্যপাদান কে অত্যাবশ্যক সহায়ক খাদ্য উপাদান রূপে অভিহিত করেন। পরবর্তীকালে ১৯২০ খ্রিস্টাব্দে J.C. Drumond প্রদত্ত ভিটামিনের এর E শব্দ বাদ দিয়ে ভিটামিন শব্দটি প্রবর্তন করেন। 

ভিটামিন কে আবিস্কার করেন? 

১৯১২সালে ক্যাশিমির ফ্রাঙ্ক ভিটামিন আবিস্কার করেন। 

ভিটামিন এর সংজ্ঞা (Definition of Vitamin)

ভিটামিন কি বা কাকে বলে? 

ভিটামিন(Vitamin)  বা খাদ্যপ্রাণ হলো জৈব খাদ্য উপাদান যা সাধারণ খাদ্যে অতি অল্প পরিমাণে থেকে দেহের স্বাভাবিক পুষ্টি ও বৃদ্ধিতে সহায়তা করে এবং রোগ প্রতিরোধ শক্তি বৃদ্ধি করে।

ভিটামিন কয় প্রকার ও কি কি 

ভিটামিন কে কয় ভাগে ভাগ করা যায়? দ্ৰৱণীয়তার ওপর নিৰ্ভর করে ভিটামিনকে দুই ভাগে বিভক্ত করা হয় – 

স্নেহদ্রাব্য ভিটামিন (ভিটামিন A,D,E আর K)

জলদ্রাব্য ভিটামিন (ভিটামিন B কমপ্লেক্স আর C )।

পানিতে দ্রবীভূত ভিটামিন কত প্রকার ও কি কি বা পানিতে দ্রবনীয় ভিটামিন কি কি

ভিটামিন B কমপ্লেক্স

Vitamin B1 (থিয়ামিন), Vitamin B2 (রাইবোফ্লাভিন), Vitamin B3    (প্যান্টথ্যানিক অ্যাসিড), Vitamin B4 (কোলিন), Vitamin B5 (নিয়াসিন), Vitamin B6 (পাইরিডক্সিন), Vitamin B12 (সায়ানাকোবালামিন)

Vitamin C (অ্যাসকরবিক অ্যাসিড)

ভিটামিন এর বৈশিষ্ট্য

জীৱদেহের স্বাভাবিক পুষ্টি,বৃদ্ধি প্ৰভৃতি অত্যাবশ্যকীয় জীবন-প্ৰক্ৰিয়া সুস্থভাবে সম্পাদনায়  ভিটামিন অপরিহাৰ্য। আমাদের দেহে খুব অল্প মাত্রায় এটা প্রয়োজন।

বেশিভাগ ভিটামিন এর  প্ৰধান উৎস হ’ল উদ্ভিদ; উদ্ভিদ, সংশ্লেষণ এর মাধ্যমে অধিকাংশ ভিটামিন উৎপন্ন করে, কয়েকটি ভিটামিন যেমন ভিটামিন এ, ভিটামিন ডি, ভিটামিন বি-টুয়েলভ, ভিটামিন কে, যা সাধারণতঃ প্রাণীদেহেই সংশ্লেষিত হয়।

খাদ্যতে ভিটামিন অতি অল্প পরিমাণে থাকলে ও কোষের নানাবিধ বিপাকীয় ক্ৰিয়াত সাহায্য করে।

বেশিরভাগ ভিটামিন মেটাবলিজম-এ ড্যামেজ হলেও পাচন ক্রিয়া এর ওপর কোন প্রভাব সৃষ্টি করতে পারে না।

খাদ্য বেশি  সিদ্ধ করলে বা শুকালে অধিকাংশ ভিটামিন নষ্ট হয়ে যায়। 

অধিকাংশ ভিটামিন কো-এনজাইম রূপে উৎসেচক এর সঙ্গে সঙ্গবদ্ধ হয়ে ক্রিয়া করে।

বিভিন্ন ভিটামিন এর অভাবে বিপাকীয় ক্ৰিয়া বিঘ্নিত হয়,সাথে সাথে ভিটামিন এর অভাবজনিত নানা রোগ সৃষ্টি হয়।

কিছু কিছু ভিটামিন দেহের মধ্যেই স্টোর করা থাকে।

দেহের মধ্যে সঞ্চিত ভিটামিন সমূহ

১.প্রো ভিটামিনঃ

প্রো ভিটামিন বলতে কি বোঝায়? প্রো ভিটামিন বলতে আমরা বুঝি এমন একটি ভিটামিন যা যৌগ থেকে সংশ্লেষিত হয়। আর ওই যৌগ গুলিকেই প্রো-ভিটামিন বলে। ভিটামিন এ এর প্রো ভিটামিন হল বিটা ক্যারোটিন।

২.অ্যান্টি ভিটামিনঃ

অ্যান্টি ভিটামিন কাকে বলে? আমাদের শরীরে যে সকল যৌগ গুলি ভিটামিনের কাজে বাধার সৃষ্টি করে সেই যৌগগুলোকে অ্যান্টি ভিটামিন বলে। পাইরিথিয়ামিন, ভিটামিন বি-ওয়ান এর অ্যান্টি ভিটামিন হিসেবে কাজ করে।

৩.সিউডো ভিটামিনঃ

প্রাণীদেহের যে জৈব যৌগ গুলি ভিটামিন-এর পরিপূরক, কিন্তু কাজের দিক থেকে ভিটামিনের সমান গুন নয়। মিথাইল কোবালামিন, ভিটামিন বি টুয়েলভ এর সিউডো ভিটামিন।

ভিটামিনের (Vitamin) রাসায়নিক নাম 

এক নজরে বিভিন্ন ভিটামিনের (Vitamin) রাসায়নিক নাম। ভিটামিন কি কি

Vitamin A (রেটিনল), Vitamin B1 (থিয়ামিন), Vitamin B2 (রাইবোফ্লাভিন), Vitamin B3    (প্যান্টথ্যানিক অ্যাসিড), Vitamin B4 (কোলিন), Vitamin B5 (নিয়াসিন), Vitamin B6 (পাইরিডক্সিন),

Vitamin B12 (সায়ানাকোবালামিন),Vitamin C (অ্যাসকরবিক অ্যাসিড), Vitamin D (ক্যালসিফেরল),

Vitamin E (টোকোফেরল),Vitamin K (ফাইলোকুইনন বা ন্যপথোকুইনন)

ভিটামিন কী কাজ করে?

ভিটামিন শরীরে বিভিন্ন কোষের স্বাভাবিক অবস্থা ধরে রাখতে সহায়তা করে।

ভিটামিন এন্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। যা ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে।

ভিটামিন কিছু কিছু হরমোনের কাজে সহায়তা করে।

স্নায়ুর কাজ স্বাভাবিকভাবে করতে সহায়ক ভূমিকা রাখে।

ত্বকের স্বাভাবিক কাজকর্ম নিয়ন্ত্রণ করে।

ভিটামিন রক্তের কাজ নিয়ন্ত্রণে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

ভিটামিনের স্বল্পতার প্রভাবগুলো

১. রাতকানা

২. রক্তস্বল্পতা

৩. চর্মরোগ

৪. রিকেট ও অস্টিওম্যালিসিয়া (হাড়ের রোগ)

৫. স্বায়ুরোগ

ভিটামিন কিন্তু কখনো কখনো এর আধিক্য শরীরের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

অধিক ভিটামিনের ক্ষতিকর প্রভাব

হাইপারভিটামিনসিস (ভিটামিন A)

তন্দ্রাভাব (ভিটামিন B1)

লিভারে বিরূপ প্রভাব (ভিটামিন B3)

বমি বমিভাব ও ডায়রিয়া (ভিটামিন B5)

হার্ট ফেইলিওর (ভিটামিন E)

মানবদেহে ভিটামিন এর গুরুত্ব কি (Importance of vitamin)

মানবদেহে ভিটামিন এর গুরুত্ব অপরিসীম। ভিটামিন দেহের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ও পুষ্টিতে অপরিহার্য। ভিটামিন উৎসেচক এর সঙ্গে কোন গ্রুপে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করে বিভিন্ন ভিটামিন প্রাণীদের রোগ প্রতিরোধে সক্রিয় ভাবে অংশ নেয় তাই ভিটামিনের অভাব হলে প্রাণীদের নানারকম উপসর্গ দেখা দেয়। 

Leave a Comment